ডায়রিয়া সংকট মোকাবেলায় নিরাপদ পানির দাবি

ডায়রিয়া সংকট মোকাবেলায় নিরাপদ পানির দাবি, পুরান ঢাকার বাসিন্দা মমতাজ বেগমকে গ্যাস, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশনের সমস্যার কারণে গত কয়েক মাসে বেশ কয়েকবার অন্যত্র স্থানান্তরিত হতে হয়েছে।

আরও খবর পেতে ভিজিট করুনঃ newsallw.com

ডায়রিয়া সংকট মোকাবেলায় নিরাপদ পানির দাবি

মমতাজ বেগম জানান, তিনি হাজারীবাগের বিভিন্ন বস্তি এলাকায় থাকতেন।

যেখানে প্রায়ই তাকে পানি ও গ্যাসের সমস্যায় পড়তে হতো।

ওয়াসার কাছে অভিযোগ করলে তারা পানি ফুটানোর পরামর্শ দেন।

কিন্তু বস্তিতে ফুটন্ত পানি তো দূরের কথা, গ্যাসের সংকটে খাবার জোগাড় করাও কঠিন।

অনিরাপদ পানি পান করে শিশু ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা প্রায়ই পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হয়।

মমতাজ বেগম ডায়রিয়া সংকট মোকাবেলা ও নিরাপদ খাবার পানি নিশ্চিতকরণ বিষয়ক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন।

আজ রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মিলনায়তনে পরিবেশ সংরক্ষণ আন্দোলন (পবা) ও বেসরকারি গবেষণা সংস্থা বারসিক নাগরিক সংলাপের আয়োজন করে।

সভায় বক্তারা সম্প্রতি ডায়রিয়া সংকট মোকাবেলায় নিরাপদ পানির দাবি জানান।

ডায়রিয়া সংকট মোকাবেলায় নিরাপদ পানির দাবি

সংলাপের শুরুতে কনসেপ্ট পেপার উপস্থাপন করেন বারসিকের প্রোগ্রাম অফিসার সুদীপ্ত কর্মকার।

তিনি ডায়রিয়া সংকট মোকাবেলায় সাতটি সুপারিশ পেশ করেন।

সুপারিশগুলি হল নিয়মিত জলের গুণমান পরীক্ষা সম্পর্কে জনসাধারণকে অবহিত করা এবং বিশুদ্ধ জল সরবরাহ করা; শহরের পিছিয়ে পড়া মানুষদের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে অগ্রাধিকার দেওয়া;

এ বছর ডায়রিয়া ও কলেরার উচ্চ প্রকোপ সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করা;

ওয়াসা ও স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা চিহ্নিত করে দ্রুত সেখানে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের পাশাপাশি ওই এলাকার পানি পরীক্ষা করে;

ডায়রিয়া ও কলেরায় আক্রান্ত রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা, বিশেষ ক্ষেত্রে আর্থিক সহায়তা;

সরবরাহকৃত পানির যথাযথ মান নিয়ন্ত্রণ এবং পানি বিশুদ্ধ রাখতে খোলা রাস্তা ও ছোট দোকানে খাদ্য বিক্রেতাদের ওপর নজরদারি বাড়ানো।

পানি ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হতে হবে

গবেষক পাভেল পার্থ নীতিনির্ধারকদের সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, “জলবাহিত রোগ যেকোনো সময় যেকোনো রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটাতে পারে।”

করোনার অভিজ্ঞতা আমাদের আতঙ্কিত হতে বাধ্য করছে।

দ্রুত ডায়রিয়া মোকাবেলায় নীতিনির্ধারকদের সচেতন হতে হবে এবং জরুরি পদক্ষেপ নিতে হবে।

পানি সংকট নিরসনে সেবা প্রদানকারীদের জবাবদিহিতার আওতায় আনা জরুরি। ‘

পবার চেয়ারম্যান আবু নাসের খান বলেন, ওয়াসাকে নিয়মিত পানি পরীক্ষা করে জনগণের কাছে প্রতিবেদন প্রকাশ করতে হবে।

একই সঙ্গে পানি ব্যবহারে সবাইকে আরও সচেতন হতে হবে।

সংলাপে সভাপতিত্ব করেন বারসিক পরিচালক রোমাইসা সামাদ। গবেষক পাভেল পার্থ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন,

পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের (পাউবা) চেয়ারম্যান আবু নাসের খান, সাধারণ সম্পাদক ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক আবদুস সোবহান এবং সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ।

About admin

Check Also

উত্তর দক্ষিণ প্রক্টরসহ ৫ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা

উত্তর দক্ষিণ প্রক্টরসহ ৫ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা

 উত্তর দক্ষিণ প্রক্টরসহ ৫ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা , জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষককে মারধর ও হয়রানির …

Leave a Reply

Your email address will not be published.