গণমাধ্যমকর্মী সুরক্ষা আইনে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই

গণমাধ্যমকর্মী সুরক্ষা আইনে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই, গণমাধ্যমকর্মী সুরক্ষা খসড়া আইন-২০২২

প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এটি পাস হলে

দেশে নিয়ন্ত্রণমূলক অবস্থা আরো পাকাপোক্ত হবে। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বলতে কিছুই থাকবে না। আজ রবিবার

আরও খবর পেতে ভিজিট করুউঃ newsallw.com

গণমাধ্যমকর্মী সুরক্ষা আইনে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই

জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে বিএনপি সমর্থিত ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নেরে ইফতার

মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গণমাধ্যমকর্মী সুরক্ষা আইনের উদ্দেশ্য হলো কোনো মতেই যেন বাকস্বাধীনতা,

ফ্রিডম অব প্রেস, ডেমোক্রেসি না থাকে, কোনোমতেই যেন সরকারের বিরুদ্ধে কেউ কোনো কথা বলতে না পারে এবং

যারাই সত্যের পথে, গণতন্ত্রের পথে, জনগণের পক্ষে কথা বলবে তাদের যেন নিয়ন্ত্রণে আনা যায়, সে জন্য এই আইনের মধ্যে

রাখা হয়েছে এই আইন যদি পাস হয়ে যায়, পাস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। কারণ সংসদে পার্লামেন্টে সদস্য যারা আছে তারা

লেজুড়বৃত্তি করে, এই আইন পাস হয়ে গেলে…। আজকে দেশে পুরোপুরিভাবে একটা নিয়ন্ত্রণমূলক অবস্থা বিরাজ করছে।

এখন যে অবস্থা বিরাজ করছে সেটা পাকাপোক্ত হবে

ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এম আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরীর সঞ্চালনায় এতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন, জামায়াতে ইসলামীর এ টি এম মাসুদ, সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজী, এম এ আজিজ, কামাল উদ্দিন সবুজ, আবদুল হাই শিকদার, মোস্তফা কামাল মজুমদার, বাকের হোসাইন, শহীদুল ইসলাম,

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির মুরসালিন নোমানী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির অধ্যাপক লুৎফুর রহমান, ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের অধ্যাপক আব্দুস সালাম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

দেশের ৪৩৮টি নির্বাচন অফিসে ভিপিএন স্থাপনের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সঙ্গে বিটিসিএল-এর চুক্তি সই হয়েছে। আজ রবিবার রাজধানীর আগারগাঁস্থ নির্বাচন ভবনে এ চুক্তি সই-এর সময় বিটিসিএলের ব্যবস্থাপনা

গণমাধ্যমকর্মী সুরক্ষা আইনে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই

পরিচালক ড. মো. রফিকুল মতিনসহ বিটিসিএলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং নির্বাচন কমিশনের সচিবসহ কমিশন সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বিটিসিএলের পক্ষে সিজিএম সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং মো. আনোয়ার হোসেন এবং নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের পক্ষে সিস্টেম ম্যানেজার আইসিটি উইং মো. রফিকুল হক এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি অনুসারে বিটিসিএল তাদের অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনের ভিপিএন স্থাপনে সহায়তা দেবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.