কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ, সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্তে রোববার বিকেলে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের কার্যালয়ে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ছাত্রলীগের দুই কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত ছিলেন।

কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

তাদের সামনেই উপজেলা ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটে।

জেলা ও উপজেলা ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল মোস্তফার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্তে সম্প্রতি কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও

সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত দুই সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। রোববার বিকেলে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনান।

সভায় উপজেলা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের বক্তব্য শোনা হয়।

সভা শেষে হোয়াইকিং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সদস্য ফরহাদুল ইসলাম তার বক্তব্যে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তোলেন।

কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

এ সময় উপজেলা ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।

একপর্যায়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি হয়।

কেন্দ্রীয় ও জেলা ছাত্রলীগ নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

জেলা ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, ২০২১ সালের ১৩ এপ্রিল সাইফুল ইসলামকে সভাপতি ও নুরুল মোস্তফাকে সাধারণ সম্পাদক করে টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

পরে অভিযোগ ওঠে, নুরুল মোস্তফা ছাত্রদলের হ্নীলা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের সহ-সভাপতি ছিলেন।

এদিকে গত ৬ এপ্রিল জুমার নামাজের পর উপজেলার হ্নীলার মৌলভীবাজারে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে স্থানীয় দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে।

পুলিশ ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে

ওই রাতেই টেকনাফ থানায় হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য বেলাল উদ্দিন বাদী হয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল মোস্তফাসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

নুরুল মোস্তফার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্তে কমিটি গঠন করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম জানান, সংঘর্ষে তার কোনো ভূমিকা নেই।

তিনি বলেন, আমি কোনোভাবেই জড়িত নই।

আমার কমিটির সাধারণ সম্পাদক নুরুল মোস্তফার বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত করতে টেকনাফে এসেছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দুই নেতা।

এ সময় শ্রমিকদের মধ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। পরে জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

ঘটনাস্থলেই বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হয়েছে

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল মোস্তফা বলেন, রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্য এক চতুর্থাংশ আমার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেছে।

কেন্দ্রীয় কমিটির তদন্তকালে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আমাকে দোষী সাব্যস্ত করার চেষ্টা করা হয়।

তবে কেন্দ্রীয় কমিটি প্রধানের সিদ্ধান্ত আমি নেব। ‘

এ বিষয়ে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সাদ্দাম হুসাইন বলেন, তারা টেকনাফে গিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

এ সময় স্থানীয় ছাত্র লীগের দুই পক্ষের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থলেই বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হয়েছে। একই সঙ্গে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদকের তদন্ত এখনো চলছে।

About admin

Check Also

২০০৮ সাল থেকে ফরিদপুরে কোনো রাজনীতি ছিল না

২০০৮ সাল থেকে ফরিদপুরে কোনো রাজনীতি ছিল না

২০০৮ সাল থেকে ফরিদপুরে কোনো রাজনীতি ছিল না, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান বলেছেন, …

Leave a Reply

Your email address will not be published.