এবার ঈদে বাড়ি যাবেন দ্বিগুণ মানুষ

এবার ঈদে বাড়ি যাবেন দ্বিগুণ মানুষ, এবার পবিত্র ঈদুল ফিতরে প্রায় দ্বিগুণ মানুষ গ্রামের বাড়ি যাবে।

রমজানের পরের ২৫ দিন থেকে ঈদের আগের দিন দুপুর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত রাজধানী অচল হয়ে যেতে পারে।

আরও খবর পেতে ভিজিট করুনঃ newsallw.com

এবার ঈদে বাড়ি যাবেন দ্বিগুণ মানুষ

যানজট ও অব্যবস্থাপনার কারণে গণপরিবহনে যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করা না গেলে এবারের ঈদযাত্রায় ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

রোববার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ঈদের মিছিলে অসহনীয় যানজট, পথে যাত্রীদের হয়রানি,

অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ে নৈরাজ্যসহ দাবি শিরোনামে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব উদ্বেগ প্রকাশ করে যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধ করুন’। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের মহাসচিব ড. মোজাম্মেল হক চৌধুরী।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করেন বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক মো. হাদিউজ্জামান।

তিনি মনে করেন, এবার চাহিদা বেশি থাকায় সড়ক ব্যবস্থাপনা কোমায় চলে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে হাদিউজ্জামান বলেন, “২০১৬ এবং ২০১৯ সালের অ্যাক্সিডেন্ট রিসার্চ সেন্টারের তথ্য থেকে দেখা যায় যে ঈদে ১১৫ মিলিয়ন মানুষ বাড়ি গেছে।”

এবার ঈদে বাড়ি যাবেন দ্বিগুণ মানুষ

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে গত চার বছরে মানুষের সংখ্যা কমেছে।

আমাদের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি ঈদে অন্তত ৬০ লাখ মানুষ গ্রামে যায়।

চলমান এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ঈদের আগে চার দিন প্রতিদিন গড়ে ৩০ লাখ মানুষ ঢাকা ছাড়বেন।

এ সময়ে বাসে করে ৬ লাখ, ট্রেনে ১ লাখ, লঞ্চে দেড় লাখ, প্রাইভেটকারে চার লাখ এবং মোটরসাইকেলে প্রায় চার লাখ মানুষ ঢাকা ছাড়তে পারবেন।

বাকি ১২-১৩ লাখ মানুষ ট্রাক বা ট্রেনে ঢাকা ছাড়বে। তাহলে দুর্ঘটনার আশঙ্কা বাড়বে। ‘

হাদিউজ্জামান আরও বলেন, ২০ রমজানের পর স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকবে।

বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন রাজধানীর মানুষ

যে পরিবারের সদস্যদের কাজ নেই তাদের ২০ রমজান থেকে বাড়ি পাঠানো উচিত।

যারা কাজ করছেন, তারা ছুটি পেলে পরে যাবেন।

তাহলে হয়তো কিছুটা স্বস্তি পাওয়া যাবে।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী লিখিত বক্তব্যে বলেন,

এবারের ঈদযাত্রায় যানজটের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন রাজধানীর মানুষ।

তাই এ মুহূর্ত থেকে রাজধানীর সব ফুটপাত, রাস্তার হকার ও অবৈধ পার্কিং উচ্ছেদ করার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্টদের কাছে দাবি জানান তিনি।

অসহনীয় যানজট সহ্য করতে হবে

মোজাম্মেল হক চৌধুরী আরও বলেন, রাজধানী থেকে দেশের বিভিন্ন জেলায় যাতায়াতের গেটওয়ে বিশেষ করে যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, বাবুবাজার ব্রিজ,

পোস্তগোলা, টঙ্গী রেলস্টেশন, শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার উরলসেতু, মীরের বাজার, উলুখোলা, কাঞ্চন ব্রিজ, গাবতলী সড়ক।

গাবতলী মাজার রোড, ইপিজেড, চন্দ্রা, রায়েরবাজার শহীদ বুদ্ধিজীবী সেতু, জিঞ্জিরা, কেরানীগঞ্জ, হাতিরঝিল, মহাখালী, রামপুরা, শেখের স্থান,

আমুলিয়া, ডেমরা, সুলতানা কামাল সেতু, চিটাগাং রোড, কাঁচপুর, মদনপুর, মেঘনা, ভুট্টা, ভুট্টা, গাবতলী।

উত্তরা থেকে গাজীপুর যাওয়ার সময় অসহনীয় যানজট সহ্য করতে হবে।

তিনি সড়কের মোড় পরিষ্কার রাখার দাবি জানান এবং প্রধান সড়কে ছোট যানবাহন বিশেষ করে রিকশা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ও ইজিবাইক চলাচল বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

তা না হলে রমজানের পরের ২৫ দিন থেকে ঈদের দিন পর্যন্ত দুপুর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত রাজধানী অচল হয়ে পড়বে।

About admin

Check Also

কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ, সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্তে রোববার বিকেলে কক্সবাজারের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.